জুলাই ১১, ২০২০ ৭:৩০ অপরাহ্ণ
বাংলাদেশের ঋণের টাকা ২৬ বছরেও শোধ করেনি উত্তর কোরিয়া!

বাংলাদেশের ঋণের টাকা ২৬ বছরেও শোধ করেনি উত্তর কোরিয়া!

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
Share on email
১৯৯৪ সালে বাংলাদেশের কাছ থেকে কেনা বিভিন্ন সামগ্রীর মূল্য ১১ দশমিক ৬২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার এখনও পরিশোধ করেনি উত্তর কোরিয়া।

প্রায় ২৬ বছর আগের ঋণ এখনো শোধ করেনি উত্তর কোরিয়া। ১৯৯৪ সালে বাংলাদেশের কাছ থেকে কেনা বিভিন্ন সামগ্রীর মূল্য ১১ দশমিক ৬২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার এখনও পরিশোধ করেনি উত্তর কোরিয়া।

গত শনিবার (২৭ জুন) সংবাদমাধ্যম দ্য বিজনেস স্ট্যান্ডার্ডসের এক প্রতিবেদনে জানায়, ২৬ বছর আগে সোনালী ব্যাংকের সঙ্গে বার্টার চুক্তির আওতায় পণ্য আমদানি করে উত্তর কোরিয়া। ওই পাওনা টাকার জন্য চীনের রাজধানী বেইজিংয়ে বাংলাদেশি দূতাবাস উত্তর কোরিয়া দূতাবাসের সঙ্গে কয়েকবার যোগাযোগ করেছে। তবে এখনো উত্তর কোরিয়া এই বিষয়ে কিছুই জানায়নি।

উত্তর কোরিয়া বাংলাদেশ থেকে যেসব পণ্য আমদানি করেছিল সেগুলো হলো- চাল, সিমেন্ট, চা, পাট ও পাটজাত পণ্য, ইউরিয়া সার, পশুর চামড়া, চামড়াজাত পণ্য, সাবান, ডিটারজেন্ট, টয়লেট্রিজ এবং গ্লিসারিন।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে বিলটি সুরক্ষিত করার জন্য সরকারি মালিকানাধীন সোনালী ব্যাংক ফাইন্যান্সিয়াল ইন্সটিটিউশন ডিভিশনের (এফআইডি) হস্তক্ষেপ কামনা করেছে।

১৯৭৭ সালের ১২ আগস্ট বাংলাদেশ ও উত্তর কোরিয়ার মধ্যে প্রথম বার্টার চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল। চুক্তির আওতায় সোনালী ব্যাংককে বাংলাদেশের পক্ষে এবং বিদেশি বাণিজ্য ব্যাংককে উত্তর কোরিয়ার পক্ষে ব্যাংকিং কার্যক্রম সম্পাদনের জন্য মনোনীত করা হয়েছিল।

প্রতিবেদন থেকে আরও জানা যায়, বার্টার ৫ চুক্তির আওতায় উত্তর কোরিয়া বাংলাদেশ থেকে ৬.১৪ মিলিয়ন ডলারের পণ্য কিনেছিল। কিন্তু ওই পণ্য কেনার সময় কোনো মূল্য পরিশোধ করেনি দেশটি। বার্টার ৫ এর পুরো বকেয়াগুলি বার্টার ৬ এ স্থানান্তরিত হয়েছিল, যা ১৯৯৪ সালের ১২ সেপ্টেম্বর স্ট্যান্ডিং ৬.২৬ মিলিয়ন ডলারে স্বাক্ষরিত হয়েছিল। ১৯৯৫ সালের ৩১ মার্চ কোনো লেনদেন ছাড়াই বার্টার ৬ চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়ে যায়। এরপর থেকে বেইজিংয়ে বাংলাদেশি দূতাবাস চীনের উত্তর কোরিয়ার দূতাবাসের কাছে বাকি বকেয়া পরিশোধের জন্য কয়েকবার যোগাযোগ করে। তবে ২০২০ সাল পর্যন্ত কোনো উত্তর দেয়নি কিম জং উনের দেশ।

১৯৯৪ সালে বার্টার ৬ চুক্তির স্বাক্ষরের পরে দুই ব্যাংকই স্ব স্ব দেশগুলির পক্ষে ব্যাংকিং কার্যক্রম সম্পাদনের জন্য একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছিল। এই আন্তঃব্যাংক চুক্তিতে তিন মাসের ডলার এলআইবিওর হারে সুদ আদায়ের বিধান অন্তর্ভুক্ত ছিল।

২০১৪ সালের মধ্যে দেনার পরিমাণ বেড়ে দাঁড়ায় ১১ দশমিক ৬২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। সে বছর বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সোনালী ব্যাংক যাতে তার পাওনা পেতে পারে সেজন্য যথাযথ উদ্যোগ নিতে চীনের বাংলাদেশি দূতাবাসের বাণিজ্যিক পরামর্শদাতাকে একটি চিঠি পাঠিয়েছিল। এরপর, বাংলাদেশ দূতাবাস চীনে উত্তর কোরিয়ার দূতাবাসকে চিঠি দিয়ে বিলটি পরিশোধের জন্য অনুরোধ করেছে। তবে কোনো লাভ হয়নি। এখন পর্যন্ত কোনো জবাব দেয়নি উত্তর কোরিয়া। তবে করোনার সময়ে এই ঋণ শোধের বিষয় আরও বিলম্ব হলেও হতে পারে।

শেয়ার করুন

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
Share on email
বাংলাদেশে করোনায় নতুন সনাক্ত ২ হাজার ৬৮৫ জন; মৃত্যু ৩০
কাজাখস্তানে নতুন ‘নিউমোনিয়া’; মৃত্যুহার করোনার চেয়ে কয়েকগুণ বেশি!
জমজমাট লড়াইয়ে শুরু হলো ‘পরবাসী তারা’ সিজন-১ এর ফাইনাল!
চিংড়ির প্যাকেটে করোনা সনাক্ত; ইকুয়েডরের সাথে খাদ্য আমদানি নিষিদ্ধ করলো চীন!
জমজমাট লড়াইয়ে শুরু হলো ‘পরবাসী তারা’ সিজন-১ এর ফাইনাল!
এবারের হজে কি কি বিধিনিষেধ মানতে হবে হাজীদের?
করোনায় মারা যাওয়া প্রবাসীদের ৩ লাখ টাকা ‘ক্ষতিপূরণ’ দেওয়ার ঘোষণা!
আমিরাত থেকে ফিরলেন আরও ১৫৩ বাংলাদেশি
দুনিয়া দেখি ‘প্রবাস কথা’য়
1
ডেনমার্কে রাজার বাড়ি ‘ফ্রেডরিকসবর্গ প্রাসাদ’
ডেনমার্কে রাজার বাড়ি ‘ফ্রেডরিকসবর্গ প্রাসাদ’
2
১২ তলা জাহাজে ডেনমার্ক থেকে নরওয়ে
১২ তলা জাহাজে ডেনমার্ক থেকে নরওয়ে
3
ইতালীর অপরূপ ভাল দি ফুনেস। চোখ ধাঁধিয়ে দেয়ার মতো সুন্দর জায়গা
ইতালীর অপরূপ ভাল দি ফুনেস। চোখ ধাঁধিয়ে দেয়ার মতো সুন্দর জায়গা
4
প্রবাস কথা থিম সং
প্রবাস কথা থিম সং
5
ইতালিতে ভিন্ন পরিবেশে গানের আয়োজন
ইতালিতে ভিন্ন পরিবেশে গানের আয়োজন
6
ফিনল্যান্ড । বরফের রাজ্যে যখন রোদ হাসে
ফিনল্যান্ড । বরফের রাজ্যে যখন রোদ হাসে
Scroll to Top
দেশভিত্তিক সংবাদ