ঢাকা, ১৪ আগস্ট ২০২০, শুক্রবার
বাংলা সংগীত ইতিহাসের এক অনন্য নক্ষত্রের পতন; চিরবিদায় এন্ড্রু কিশোর

বাংলা সংগীত ইতিহাসের এক অনন্য নক্ষত্রের পতন; চিরবিদায় এন্ড্রু কিশোর

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
Share on email
এন্ড্রু কিশোর ছবি- ঢাকা ট্রিবিউন

বাংলাদেশের সংগীত ইতিহাসের হাতে গোনা কিছু নক্ষত্র আছেন যাঁদের ছাড়া এই সংগীতাঙ্গন কল্পনা করাই অসম্ভব। তাঁদেরই একজন ছিলেন এন্ড্রু কিশোর, যিনি নিজ গলায় সমৃদ্ধ করেছেন বাংলা সঙ্গীতকে, বাংলা সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যকে। 

সোমবার (৬ জুলাই) সন্ধ্যায় রাজশাহী মহানগরীর মহিষবাথান এলাকায় তাঁর বোন ডা. শিখা বিশ্বাসের বাড়িতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৫ বছর।

দীর্ঘদিন ধরে ব্লাড ক্যান্সারে ভুগছিলেন এই শিল্পী। গত রবিবার (৫ জুলাই) থেকেই তাঁর অবস্থা সঙ্কটাপন্ন শোনা যেতে থাকে। সঙ্গীতের দুয়ারে আটবারের চলচ্চিত্র পুরষ্কারপ্রাপ্ত এই কঠিন যোদ্ধা ভক্তদের কাঁদিয়ে চিরতরে চলে গেলেন পরপারে।

রবিবার (৫ জুলাই) রাতে এন্ড্রু কিশোরের ফেসবুক পেজে তাঁর স্ত্রী লিপিকা এন্ড্রু একটি পোস্ট করেন। সে পোস্টে নিজের পরিচয় দিয়ে এন্ড্রু কিশোরের ভক্তদের উদ্দেশ্যে পুরো পরিস্থিতি তুলে ধরেন তিনি।

পোস্টটি তুলে ধরা হলো-

গত বছর, ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, আমরা সিঙ্গাপুর গিয়েছিলাম। সেখানে কিশোরের ধরা পরে Diffuse Large B Cell Lymphoma (cancer in both Adrenal Gland)। তারপর কেমোথেরাপি ও রেডিওথেরাপি শেষ হয় এপ্রিল মাসে। ডাক্তার বলেন- এখন আর কোন কিছুর দরকার নাই। মেডিসিন দিয়ে বলেন আগস্ট মাসে আসতে। আমরা ১৩ মে দেশে আসার জন্য টিকেট কাটি, কিন্তু কিশোর ভয় পায়, কারণ সে শারীরিকভাবে খুব দুর্বল ছিল । আমি টিকেট বাতিল করি। ডাক্তার বলেন, এটা কেমোর জন্য, আস্তে আস্তে ঠিক হয়ে যাবে, সময় লাগবে। পরে ১০ জুন আবার টিকেট কাটি, কিন্তু হঠাৎ ২ জুন কিশোরের হালকা জ্বর আসে, ৩ জুন রাতে কাঁপুনি দিয়ে জ্বর আসে। ৪ জুন হাসপাতালে ভর্তি করেন ডাক্তার। কিন্তু জ্বর বার বার আসতে থাকে। কোনো মেডিসিন তাঁর শরীরে কাজ করছিল না। হাসপাতালের ডাক্তার আমাকে ফোন করে বলেন- পেট স্ক্যান করতে হবে, লিম্ফোমিয়া আবার ব্যাক করেছে কিনা দেখতে হবে। আমি খুব ভয় পেয়েছিলাম, মনে মনে শুধু ঈশ্বরকে ডেকেছি। কারণ শুরুতে ডাক্তার বলেছিলেন, লিম্ফোমিয়া যদি একবারে নির্মূল না হয়, যদি ব্যাক করে , তাহলে সেটা দ্বিগুণ শক্তিশালী হয়ে আসে আর খুব দ্রুত ছড়ায় এবং সেটা কোনভাবেই নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয় না। ৯ জুন পেট স্ক্যান হয় এবং সেদিন রাতে ডাক্তার আমাকে ফোন করে বলেন যে পরদিন, মানে ১০ জুন সকাল ১০ টায় আমার সাথে পেট স্ক্যান নিয়ে আলাদা করে কথা বলতে চান। ৯ জুন রাতটা ছিল আমার জীবনের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর রাত। আমি সারারাত ঘুমাতে পারিনি, সকালে ১০ টার আগে হাসপাতালে গিয়ে বসে থাকি কিশোরের পাশে। কিশোর আমাকে বলল- ডাক্তারকে বলবা, হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দিতে, আমরা দেশে ফিরবো। আমি ভয়ে চুপ করে বসে আছি, শুধু বললাম দেখি ডক্টর কী বলে। কিছুক্ষণ পরে একজন নার্স এসে আমার হাত ধরে টেনে বাইরে নিয়ে গেল, বলল ডাক্তার ডাকছে। ডক্টর আমার সামনে এসে একটাই কথা বলল লিম্ফোবিয়া ব্যাক করেছে। আমি চুপ করে দাঁড়িয়ে থাকি, কোন কথা বলতে পারছিলাম না, বুঝলাম- সব শেষ। ডাক্তার বললেন, এন্ড্রুকে বলব? আমি বললাম, বলতে তো হবে। ডাক্তার আমাকে কম্পিউটার স্ক্রিনের সামনে নিয়ে গেলেন এবং দেখালেন। এডার্নাল গ্রান্ডে কিছু নাই, কিন্তু লিম্ফোবিয়া ভাইরাস ডান দিকের লিভার এবং স্পাইনালে ছড়িয়ে গিয়েছে এবং শরীরের বিভিন্ন জায়গায় অল্প অল্প আছে। আমি কোন কথা বলতে পারছিলাম না। চোখের জল ঠেকাতে পারছিলাম না, অনেক কষ্টে ডাক্তারকে জিজ্ঞেস করলাম- এখন করনীয় কী। ডাক্তার বললেন- আমি সরি, আমার আর কিছুই করার নাই। আমি চুপ করে দাঁড়িয়ে থাকি, চোখ দিয়ে অঝোরে জল পড়ে যাচ্ছে। নিজেকে এত অসহায় লাগছিল যে, কী করবো বুঝতে পারছিলাম না। কিশোর বুঝতে পেরেছিল, আমাকে ডাকতে থাকে। ডাক্তার কিশোরকে বলে লিম্ফোমিয়া ব্যাক করেছে। কিশোর ডাক্তারকে বলে, তুমি আজই আমাকে রিলিজ করো, আমি আমার দেশে মরতে চাই, এখানে না, আমি কাল দেশে ফিরব। আমাকে বলে, আমি তো মেনে নিয়েছি, সব ঈশ্বরের ইচ্ছা, আমি তো কাঁদছি না, তুমি কাঁদছ কেন? কিশোর খুব স্বাভাবিক ছিল, মানসিকভাবে আগে থেকে প্রস্তুত ছিল, যেদিন থেকে জ্বর এসেছিল সেদিন থেকে। কিশোর হাই কমিশনে ফোন করে বলে, কালই আমার ফেরার প্লেন ঠিক করে দেন। আমি মরে গেলে আপনাদের বেশী ঝামেলা হবে, জীবিত অবস্থায় পাঠাতে সহজ হবে। ১০ জুন বিকালে হাসপাতাল থেকে ফিরি এবং ১১ জুন রাতে এয়ার এম্বুলেন্সে করে দেশে ফিরে আসি আমরা। ঈশ্বরের কী খেলা, ১০ জুন আমরা সম্পূর্ণ পজিটিভ রেজাল্ট নিয়ে ফিরতে চেয়েছিলাম, অথচ ১১ জুন ফিরলাম পুরো নেগেটিভ রেজাল্ট নিয়ে। আমি ডাক্তারের কাছে জানতে চেয়েছিলাম- আর কতদিন, সে লিখেছিল ‘It’s difficult to predict, but typically in terms of months rather than years।’ এখন কিশোর কোন কথা বলে না। চুপচাপ চোখ বন্ধ করে শুয়ে থাকে। আমি বলি কী ভাব, বলে কিছু না, পুরানো কথা মনে পড়ে আর ঈশ্বরকে বলি আমাকে তাড়াতাড়ি নিয়ে যাও, বেশি কষ্ট দিয়ো না। ক্যান্সারের লাস্ট স্টেজ খুব যন্ত্রনাদায়ক ও কষ্টের হয়। এন্ড্রু কিশোরের জন্য সবাই প্রাণ খুলে দোয়া করবেন, যেন কম কষ্ট পায় এবং একটু শান্তিতে পৃথিবীর মায়া ছেড়ে যেতে পারে। আমার মনে হল, কিশোর শুধু আমার বা আমাদের সন্তানের বা আমাদের পরিবারের নয়, বরং দেশের মানুষের একটা অংশ বা সম্পদ। তাই এই কথাগুলো দেশের ভক্ত স্রোতাদের বলা বা জানানো আমার দায়িত্বের মধ্যে পড়ে। এটাই শেষ পোস্ট, এর পর আর কিছু বলা বা লেখার মতো আমার মানসিক অবস্থা থাকবে না। এখনও মাঝে মাঝে দুঃস্বপ্ন মনে হয়, কিশোর থাকবে না, অথচ আমি থাকবো, মেনে নিতে পারছি না। এই অসময়ে, সবাই সাবধানে থাকবেন, নিজের প্রতি যত্ন নিবেন, সুস্থ থাকবেন, ভাল থাকবেন আর এন্ড্রু কিশোরের প্রতি ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টি রাখবেন ও প্রাণ খুলে দোয়া করবেন। বিদায়।

সোমবার এন্ড্রু কিশোরের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এক শোকবার্তায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন,

এন্ড্রু কিশোর তার গানের মাধ্যমে মানুষের হৃদয়ে স্মরণীয় হয়ে থাকবেন।

অন্যদিকে এন্ড্রু কিশোরকে ‘যাদুকরী শিল্পী’ হিসেবে অভিহিত করে শোকবার্তায় জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

এন্ড্রু কিশোরের অন্যতম জনপ্রিয় গানের এক লাইনই হয়তো তাঁর ভক্তদের জন্য সান্ত্বনা,

ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে
রইবো না আর বেশি দিন তোদের মাঝারে…

 

 

শেয়ার করুন

Share on facebook
Share on twitter
Share on whatsapp
Share on email
রায়হানের রিমান্ড কমানোর আবেদন খারিজ করলো মালয়েশিয়ার হাইকোর্ট!
করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর হার কমে যাওয়ায় বন্ধ হয়েছে অনলাইন ব্রিফিংঃ স্বাস্থ্যমন্ত্রী
দেড় মিলিয়ন ডলারে তৈরি হলো মাস্ক; সর্বোচ্চ দামের রেকর্ড!
একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হলেন ভারতের ঝাড়খণ্ডের শিক্ষামন্ত্রী!
বৈরুতের বিস্ফোরণের ঘটনায় ১ হাজার ৫০০ কোটি ডলারের ক্ষতি!
বৈরুতে বিস্ফোরণ; তোপের মুখে লেবানন সরকারের পদত্যাগ
একমাসে ২৬০ কোটি ডলারের রেকর্ড রেমিটেন্সের পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা!
বাংলাদেশসহ ৩১ দেশের নাগরিকদের কুয়েত প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা!
দুনিয়া দেখি ‘প্রবাস কথা’য়
1
ডেনমার্কে রাজার বাড়ি ‘ফ্রেডরিকসবর্গ প্রাসাদ’
ডেনমার্কে রাজার বাড়ি ‘ফ্রেডরিকসবর্গ প্রাসাদ’
2
১২ তলা জাহাজে ডেনমার্ক থেকে নরওয়ে
১২ তলা জাহাজে ডেনমার্ক থেকে নরওয়ে
3
ইতালীর অপরূপ ভাল দি ফুনেস। চোখ ধাঁধিয়ে দেয়ার মতো সুন্দর জায়গা
ইতালীর অপরূপ ভাল দি ফুনেস। চোখ ধাঁধিয়ে দেয়ার মতো সুন্দর জায়গা
4
প্রবাস কথা থিম সং
প্রবাস কথা থিম সং
5
ইতালিতে ভিন্ন পরিবেশে গানের আয়োজন
ইতালিতে ভিন্ন পরিবেশে গানের আয়োজন
6
ফিনল্যান্ড । বরফের রাজ্যে যখন রোদ হাসে
ফিনল্যান্ড । বরফের রাজ্যে যখন রোদ হাসে
Scroll to Top
দেশভিত্তিক সংবাদ