রোমান গ্ল্যাডিয়েটর ও করোনা ভাইরাস

জার্মানি প্রবাসী আলামিন হাসান।

প্রাচীন রোমান সাম্রাজ্যের গ্ল্যাডিয়েটরদের যুদ্ধের কথা কম বেশি সবাই জানি। কলোসিয়ামে আয়োজন করা হত এই ধরণের যুদ্ধ। গ্ল্যাডিয়েটররা অধিকাংশই ছিল ক্রীতদাস। এক দাসের সাথে আরেক দাসের যুদ্ধ অথবা এক ক্রীতদাসের সাথে একজন দাগী আসামী অথবা মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত কোন মানুষের সাথে আয়োজন করা হত এই যুদ্ধ।

এই গ্ল্যাডিয়েটরদের যুদ্ধ ছিল রোমান সম্রাট, সিনেটর ও সাধারণ জনগণের অতি আনন্দের বিষয়। যোদ্ধারা একে অন্যকে যখন আঘাতের পর আঘাত করে রক্তাক্ত করত ততই দর্শকরা চিৎকার করে তাদেরকে উৎসাহিত করতেন।

একজন হেরে না যাওয়া পর্যন্ত যুদ্ধ চলতো আর যে হেরে যেত তাকে বেশিরভাগ সময়েই করুন মৃত্যু বরণ করতে হত। কখনো আবার মানুষের সাথে বাঘ, ভাল্লুক, হাতির মত হিংস্র প্রাণীর সাথেও যুদ্ধ হত।

রোমের কলোসিয়ামে আয়োজিত যুদ্ধ গুলোতে গ্ল্যাডিয়েটরদের এক পক্ষকে পরাজিত হতেই হত। তবে পরাজিতদের মধ্যে কেউ কেউ বেঁচে যেতেন যুদ্ধ শেষে সম্রাটের ছোট্ট একটা ইশারায়।

কোভিড-১৯ খ্যাত করোনা ভাইরাস নিয়ে আমরা যেন বর্তমানে রোমের কলোসিয়ামে যুদ্ধরত। এই সত্য আমরা উপলদ্ধি করতে পারছি কিনা জানিনা যে, আমাদের আশেপাশেই কেউ না কেউ এই ভাইরাস বহন করে আছে। তাই চাই বা না চাই, রোমের কলোসিয়ামের ভেতরের যুদ্ধ ক্ষেত্রের মতই আমরা নতুন এক যুদ্ধের ময়দানে আছি।

করোনা নামের এক একজন যোদ্ধা তার সুযোগ মত এক একজন মানুষকে আক্রমণ করছে আর সাথে সাথে শুরু হচ্ছে বাঁচা মরার এক সংগ্রাম। এই যুদ্ধে কখনো বিজয়ী হচ্ছে মানুষ আবার কখনো বিজয়ী হচ্ছে ভাইরাস।

যুদ্ধ তীব্র থেকে তীব্রতর হবে, কারণ লক ডাউন শিথিল হওয়ায় আমরা ঘর থেকে বের হব। আমরা যতই ঘুরবো, মার্কেটিং করব, আত্মীয় স্বজন ও বন্ধু বান্ধবদের সাথে মিশব ততই করোনা নামের এই যোদ্ধার সাথে যুদ্ধের সম্ভাবনা বেড়ে যাবে। এটাই বিজ্ঞান। এটাই বাস্তবতা।

তবে কি লক ডাউন শিথিল করা ভুল হয়েছে? ভুল হলেও এছাড়া রাষ্ট্রের অন্য কোন উপায় ছিল বলে মনে হয় না। কারণ মানুষ না খেয়ে ঘরে বসে থাকবে না। তাই রাষ্ট্রের সিদ্ধান্তের আগেই মেইন রোড বাদ দিয়ে পাড়া মহল্লার দোকানপাট সব খুলে গেছে। রাস্তায় গন পরিবহণসহ সব রকম যানবাহন চলা শুরু হয়েছে।

অর্থাৎ রাষ্ট্রের আগেই সাধারণ মানুষ তাদের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। বিশ্বে করোনার সংকট শুরু হওয়ার প্রথম দিকেও জনগণ সরকারের আগে তাদের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল।

অনেকের হয়তো মনে আছে চীন ও বিশ্বের নানা দেশে যখন করোনা তান্ডব চালাচ্ছিল তখন আমাদের দেশে প্রস্তুতির ঘাততি ছিল। কিন্তু জনসাধারণ নিজ থেকে তখন ঘর হতে বের হওয়া বন্ধ করে দিয়েছিল। রাস্তাঘাটে যানবাহনের অবস্থা হযেছিল ঈদের ছুটির মতনই। আবার যখন বলা হয়েছিল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করার মত পরিস্থিতি এখনো হয়নি তখন বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছাত্রছাত্রীদের উপস্থিতির হার ৭৫ থেকে ৮০% কমে গিয়েছিল। এতে প্রতিয়মান হয় যে অধিকাংশ জনগন সবসময় সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন। তবে সঠিক সিদ্ধান্তের সাথে এখন সঠিক কাজটি করতে হবে আমাদের।

বলা চলে দেশে এক যুদ্ধাবস্থা চলছে। হাজার হাজার লাখ লাখ মানুষ যেখানে আক্রান্ত সেখানে আপনি এটা এড়িয়ে যাবেন তার সম্ভাবনা খুবই কম! তাই জীবন জীবিকার যুদ্ধের সাথে ভাইরাসের বিরুদ্ধেও যুদ্ধে লড়তে হবে। এই যুদ্ধে জিততে হলে আপনাকে শারীরিক ও মানসিক ভাবে প্রস্তুত থাকতে হবে।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলেন এই লড়াইতে জিততে হলে আপনাকে মানসিক ভাবে দৃঢ় ও প্রফুল্ল থাকতে হবে। স্বাস্থের প্রতি বিশেষ যত্নশীল হয়ে শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে হবে। আপনার ভেতর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা যত বেশি থাকবে ভাইরাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধে আপনার জেতার সম্ভাবনা তত বেড়ে যাবে।

এই ভাইরাস কতদিন থাকবে কেউ জানে না! তাই বলে তো আমরা অনির্দিষ্টকালের জন্য ঘরে বসে থাকা সম্ভব না। যাদের ঘর থেকে বের হওয়া দরকার তারা বের হবেন। তবে অবশ্যই সতর্ক থাকতে হবে।

আমরা এখন প্রাচীন রোমান সাম্রাজ্যের সেই কলোসিয়ামে আছি। মনোবল শক্ত রাখুন। মরার আগেই আমরা যেন মরে না যাই! করোনার সাথে যে মানুষ যুদ্ধে লিপ্ত তাকে করোনাকে পরাজিত করেই বিজয়ী হতে হবে। যে পারবেনা তাকে মরতে হবে। মনে রাখবেন এই ভাইরাসে মৃত্যুর হার শতকরা ২ ভাগেরও নীচে।

  • সুমন হাসান, মিউনিখ, জার্মানি। 

১ thought on “রোমান গ্ল্যাডিয়েটর ও করোনা ভাইরাস”

  1. Pingback: top gay online dating sites

Leave a Comment

Your email address will not be published.