৫ কোটি টাকা ভর্তুকি পেয়েছে সৌদি প্রবাসীদের পরিবার

প্রবাসীর পরিবারকে চেক হস্তান্তর

চট্টগ্রামে ২ হাজার ৩৩ সৌদি প্রবাসীর পরিবারকে করোনাকালে তাদের হোটেল কোয়ারেন্টিনের ভর্তুকি হিসেবে ৫ কোটি ৮ লাখ ২৫ হাজার টাকা দিয়েছে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন।

জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে চট্টগ্রামে অনুষ্ঠিত সপ্তাহব্যাপী ‘মুক্তির উৎসব ও সুবর্ণজয়ন্তী মেলার পঞ্চম দিনে গতকাল সোমবার (২১ মার্চ) এসব ভর্তুকির চেক প্রবাসীদের পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয়। এসময় প্রত্যেক পরিবারকে ২৫ হাজার টাকার চেক দেওয়া হয়।

এছাড়া প্রবাসী কর্মীদের ১২১ মেধাবী সন্তানকে শিক্ষাবৃত্তিও দেওয়া হয়। এতে জনপ্রতি সাড়ে ২৭ হাজার টাকা করে মোট ৩৩ লাখ ২৭ হাজার ৫০০ টাকা দেওয়া হয়। ওয়েজ আনার্স কল্যাণ বোর্ডের অর্থায়নে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন ও জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি অফিসের সহযোগিতায় এই চেক বিতরণ করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে চেক বিতরণ করেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের ওয়েজ আনার্স কল্যাণ বোর্ডের পরিচালক (প্রশাসন ও উন্নয়ন) ও যুগ্ম সচিব মুশাররাত জেবীন। এ সময় তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে প্রবাসী কর্মীদের কল্যাণে জেলা জনশক্তি-কর্মসংস্থান প্রশিক্ষণ ব্যুরো ও ওয়েজ আনার্স কল্যাণ বোর্ড কাজ করে যাচ্ছে। দেশ থেকে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বিশ্বের কোন কোন দেশে কর্মী পাঠানো যায় সে লক্ষ্যে সরকার যথেষ্ট আন্তরিক।

বিদেশে গিয়ে কেউ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাদের জন্য প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে চিকিৎসা সহায়তার ব্যবস্থা রয়েছে। অসুস্থতার গুরুত্ব বুঝে সর্বোচ্চ ১ লাখ টাকা পর্যন্ত চিকিৎসা খরচ সরকারিভাবে দেওয়া হয়। পাশাপাশি প্রবাসে কেউ মারা গেলে তাদের মরদেহ দ্রুত দেশে আনার ব্যবস্থা করা হয়। বিমানবন্দর থেকে মরদেহ নিজ এলাকায় নিয়ে যেতে কারও সামর্থ্য না থাকলে তাদের জন্য ফ্রি অ্যাম্বুলেন্স সেবা দেওয়া হয়। মরদেহ দাফন বা সৎকারের জন্য সর্বোচ্চ ৩৫ হাজার টাকা দেওয়া হয়। বৈধভাবে বিশেগমনকারী মৃত কর্মীর পরিবারকে ৩ লাখ টাকা পর্যন্ত আর্থিক অনুদান দেওয়া হয়।

মুশাররাত জেবীন আরও বলেন, প্রবাসী কর্মীর প্রতিবন্ধী সন্তানের জন্য প্রধানমন্ত্রী প্রতিবন্ধী ভাতা চালু করেছেন। যারা প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বৈধভাবে বিদেশে গিয়ে ফেরত আসছেন তাদের পাশে রয়েছে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়। প্রবাসে সমস্যাগ্রস্ত নারী কর্মীদের সেফ হোমে আশ্রয় দেওয়াসহ প্রয়োজনে নিরাপদে দেশে আনার সহায়তা দেওয়া হয়।

 

Leave a Comment

Your email address will not be published.